কফি পান করলে পাবেন এই ৭ টি স্বাস্থ্য উপকারিতা

Usefulness-Of-Drinking-Coffee-compressor-compressorপানীয় হিসেবে আমরা সবাই কম বেশী চা পান করে থাকি। কফির তুলনায় চা আমাদের দেশে বেশি জনপ্রিয়। চা এবং কফি কোনটি অধিক উপকারী এটা বলা কঠিন যখন কিনা এই উভয় পানীয়েরই কিছু নিজস্ব গুনাগুন আছে।

তাই চা অধিক উপকারী না কফি অধিক উপকারী এই তর্কে না গিয়ে আসুন এখানে আমরা কফি পানের কিছু উপকারিতা জেনে নিই যা কিনা আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য দরকারি, যা বৈজ্ঞানিকভাবে প্রমাণিত।

Anti-Oxidant এর উৎস

২০০৫ সালে পরিচালিত এটি গবেষণায় পাওয়া গেছে যে, অন্য কোন কিছুতেই এতটা antioxidant নেই যা কফিতে আছে। যদিও ফলমূল ও শাকসবজিতে প্রচুর antioxidant আছে কিন্তু গবেষণায় দেখা গেছে যে মানব দেহ কফি থেকে অধিক পরিমাণে antioxidant শোষণ করে। তাই কফি থাকতে পারে আপনার প্রিয় পানীয়ের তালিকায়।

ডায়াবেটিস হওয়ার ঝুঁকি কমায়

The American Chemical Society এর মতে, কফি Type-2 ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমায়। গবেষকেরা এটা খুঁজে পেয়েছেন যে যারা প্রতিদিন ৪ কাপ অথবা তার চাইতেও অধিক কাপ কফি পান করে তাদের মধ্যে
Type-2 ডায়াবেটিস হওয়ার সম্ভাবনা ৫০শতাংশ পর্যন্ত কমে যায়।

বিজ্ঞানীরা মনে করেন যে, কফির  antioxidant এর cholorogenic acid and quinides কোষের সংবেদনশীলতা কমিয়ে ইনসুলিনের গঠনে সাহায্য করে যা কিনা blood sugar নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। আর এভাবে কফি ডায়াবেটিস হওয়ার ঝুঁকি কমায়। এক্ষেত্রে চিকিৎসকের পরামর্শ ক্রমে ডায়বেটিস রোগীরা কফি পান করতে পারেন।

Parkinson’s disease এর ঝুঁকি কমায়

Science Daily ২০১২ সালে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে যেখানে বলা হয়েছে, যারা Parkinson disease এ আক্রান্ত তারা যদি কফি পান করে তবে তা তাদের চলাফেরাকে নিয়ন্ত্রণ করতে সহায়তা করে। সুইডেন এর একটি সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা গেছে যে, যদিও পারকিন্সন ডিজিজ এর ক্ষেত্রে বংশগত কারণ বিদ্যমান তবুও কফি পান করলে পারকিন্সন ডিজিজ হওয়ার সম্ভাবনা অনেক কমে যায়।

কফি আত্মহত্যার প্রবণতা কমায়

Harvard School of Public Health পরিচালিত একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে, ২-৪ কাপ কফি মহিলা এবং পুরুষদের মধ্যে আত্মহত্যার প্রবণতা কমায় ৫০ শতাংশ পর্যন্ত কারণ কফি মধ্যম ধরনের বিষণ্ণতা প্রতিরোধক হিসেবে কাজ করে । আর যারা বিষণ্ণতায় ভোগে তাদের মধ্যে আত্মহত্যার প্রবণতা বেশী দেখা যায়। এভাবে কফি বিষণ্ণতা প্রতিরোধ করে আত্মহত্যার প্রবণতা কমায়।

কফি ত্বকের ক্যান্সারের  ঝুঁকি কমায়

Brigham and Women’s Hospital and Harvard Medical School ২০ বছর ধরে ১১২,৮৯৭ জন নারী ও পুরুষের জীবনযাত্রা পর্যবেক্ষণ করে এবং দেখতে পায় যে যেসব মহিলা দিনে তিন অথবা তার অধিক কাপ কফি পান করে তাদের ত্বকের ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা অনেক কম থাকে যারা কফি পান করেনা তাদের তুলনায়।

আয়ু বৃদ্ধিতে সহায়তা করে

কফি আয়ু বৃদ্ধিতে সহায়তা করে। একটি পরীক্ষার ফলাফলে দেখা যায় যে, যেসব মহিলারা কফি পান করে তাদের ক্যানসার, হার্টের অসুখ কম হয় যা তাদের আয়ু বৃদ্ধিতে সহায়তা করে।

মস্তিস্কের কোষের ক্ষতিসাধন হতে রক্ষা করে

বিশেষজ্ঞদের মতে, কফির anti-oxident মস্তিস্কের কোষের ধ্বংস হওয়া রোধ করে এবং neurotransmitter এর কার্যকারিতা বৃদ্ধি করে যা জ্ঞানীয় প্রক্রিয়ার সাথে যুক্ত। প্রাথমিক পরীক্ষণে এটা পাওয়া গেছে যে কফি glioma নামে এক ধরনের মস্তিস্ক ক্যান্সার এর ঝুঁকি কমায়। কফি ক্যান্সার এর কোষ গঠনে বাধা প্রদান করে। এভাবে কফি মস্তিষ্ককে সম্ভাব্য ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করে থাকে।

সুতরাং, প্রতিদিন নির্দিষ্ট পরিমাণ কফি আমাদের বিভিন্ন রোগের হাত থেকে রক্ষা করে আমাদের সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করতে সহায়তা করে।

আরো পড়ুন

পরামর্শ.কম এ স্বাস্থ্য ও রূপচর্চা বিভাগে প্রকাশিত লেখাগুলো সংশ্লিষ্ট লেখকের ব্যক্তিগত মতামত ও সাধারণ তথ্যের ভিত্তিতে লিখিত। তাই এসব লেখাকে সরাসরি চিকিৎসা বা স্বাস্থ্য অথবা রূপচর্চা বিষয়ক বিশেষজ্ঞ পরামর্শ হিসেবে গণ্য করা যাবে না। স্বাস্থ্য/ রূপচর্চা সংক্রান্ত যেকোন তথ্য কিংবা চিকিৎসার জন্য বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের/বিউটিশিয়ানের শরণাপন্ন হোন।

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।

Leave a Reply