পরিবর্তন চাওয়া কিছু ব্যাঙেদের নিশ্চিহ্ন হওয়ার গল্প

frog godব্যাঙেদের খুব দুঃখ, তাদের কোন রাজা নেই। তারা দেবরাজ জুপিটারের কাছে আবেদন জানাল তাদের জন্য রাজা পাঠাতে। জুপিটার দেখলেন, এই ব্যাঙেরা নিতান্তই সহজ সরল। তিনি একটা বিরাট কাঠের গুঁড়ি তাদের মাঝখানে ফেলে দিলেন। কাঠের গুঁড়ির ঝপাং করে জলে পড়ল। সেই পড়ার চোটে ভীষণ ভয় পেয়ে ব্যাঙেরা গভীর জলে লুকিয়ে পড়ল।

কিন্তু যেই তারা দেখল যে গুঁড়িটার কোনই নড়ন চড়ন নেই, দল বেঁধে জলের উপর ভেসে উঠল সবাই। গুঁড়িটার প্রতি তাদের আর বিন্দুমাত্র ভয় নেই। এমন অবস্থা হল, তারা ওটার গা বেয়ে ওটার উপর চড়ে বসে রইল। একসময় তাদের মনে হল, এমন একটা নিষ্কর্মা রাজা পাঠিয়ে দেবরাজ তাদের প্রতি বড়ই অবিচার করেছেন।

তারা জুপিটারের কাছে আবার একজন রাজা পাঠানোর জন্য আবেদন জানাল। ইন্দ্র একটা ঈল মাছ পাঠিয়ে দিলেন তাদের উপর রাজত্ব করার জন্য। ঈল নড়ে চড়ে, ঘুরে বেড়ায়। কিন্তু বড়ই ভাল সে, খুবই শান্ত স্বভাব। ব্যাঙেদের মন ভরল না। তারা আরো একবার জুপিটারের কাছে রাজা পাঠানোর অনুরোধ করল। জুপিটার তাদের ক্রমাগত অভিযোগে অত্যন্ত বিরক্ত হয়ে একটা বককে পাঠিয়ে দিলেন তাদের রাজা করে। বকটা দিনের পর দিন ব্যাঙগুলোকে খেয়ে চলল যতদিন পর্যন্ত অভিযোগ জানানোর জন্য একটা ব্যাঙও আর পড়ে রইলনা।

প্রাচীন বচনঃ পরিবর্তন আনার সময় খেয়াল রাখা দরকার যে পরিবর্তনটা ভাল কিছুর দিকে হচ্ছে। নয়তো পরে আক্ষেপের শেষ থাকবে না।

Leave a Reply