যেভাবে আকর্ষণীয় করে তুলবেন আপনার প্রেজেন্টেশনকে

541059.TIFগত দুটি লেখায় আলোচনা করা হয়েছিলো পাওয়ার পয়েন্টে প্রেজেন্টেশন তৈরির সময় যে সব বিষয় লক্ষ্য রাখতে হয় এবং শিক্ষার্থীরা কিভাবে প্রেজেন্টেশন তৈরি ও উপস্থাপন করবেন।
এই লেখায় আরেকটু বিস্তারিত ভাবে তুলে ধরা হবে অফিসে বা ক্লাসে প্রেজেন্টেশনকে আকর্ষণীয় করার কিছু পদ্ধতি।

১. ভিজ্যুয়ালকে রাখুন সরলঃ

পোস্টার, চার্ট বা পাওয়ার পয়েন্ট স্লাইড; আপনার ভিজ্যুয়াল যা ই হোক না কেন, তাঁকে যতটা সম্ভব সহজবোধ্য এবং সরল রাখার চেষ্টা করুন। আপনার সামনের মানুষগুলো স্লাইডের লেখা পড়তে নয়, বরং আপনি কি বলেন সেটাই শুনতে চান। তাই কোনভাবেই প্রেজেন্টেশনের ভিজ্যুয়ালে অনেক বেশি কিছু লিখে ফেলবেন না।

২. শ্রোতাদের দিকে তাকানঃ

প্রেজেন্টেশন করার সময় তাকান উপস্থিত সকল শ্রোতার দিকে। এতে করে সবার সমান মনোযোগ আকর্ষণ করতে পারবেন। শুধুমাত্র একজন বা স্লাইডের দিকে তাকিয়ে প্রেজেন্টেশন করলে প্রথম ৫ মিনিটেই আপনি সবার মনোযোগ হারাতে পারেন।

৩. শ্রোতাদের মজার কিছু বলুনঃ

একঘেয়ে বক্তৃতার চেয়ে কৌতুকপূর্ণ কোন কথা সহজেই মানুষকে আকর্ষণ করে। তাই আপনার প্রেজেন্টেশনের টপিক যাই হোক না কেন, তার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ মজার কিছু খুঁজে বের করুন। এতে উপস্থিত সবাই আরও বেশি মনোযোগে আপনার কথা শুনবেন এবং উপভোগ করবেন।

৪. শ্রোতাদের মতামত নিনঃ

প্রেজেন্টেশনের মূল উদ্দেশ্য কোন বিষয় সম্পর্কে কাউকে জানানো এবং সে সম্পর্কে তার মতামত নেয়া। শুধুমাত্র স্লাইড থেকে লাইনের পর লাইন পড়ে যাওয়া কখনোই সঠিক প্রেজেন্টেশন হতে পারে না। তাই শ্রোতাদের সাথে কথা বলুন উপস্থাপনের ফাঁকে ফাঁকে, তাদের প্রশ্ন করুন, এবং আপনাকে প্রশ্ন করার সুযোগ দিন।

৫. সঠিক তথ্য উপস্থাপন করুনঃ

যে বিষয়ে প্রেজেন্টেশন করছেন সে বিষয়ে অনেক জ্ঞানের অধিকারী কেউ আপনার শ্রোতাদের সারিতে থাকতে পারেন। তাই যথা সম্ভব সঠিক এবং সত্য তথ্য উপস্থাপন করুন। কোন বিষয়ে সন্দেহ থেকে থাকলে তা এড়িয়ে যান। এতে করে উপস্থিত সবার মনে আপনার সম্পর্কে ইতিবাচক ধারণা তৈরি হবে ।

৬. কি বলছেন তা খেয়াল করুনঃ

সাধারণত আমরা কথা বলার সময় “আমম” “আআ” এধরনের শব্দ করে থাকি নিজের অজান্তেই। প্রেজেন্টেশন করার সময় এই বিষয়টি পরিহার করুন। নিজের অজান্তে করলেও শ্রোতাদের সারিতে এমন অনেকেই থাকতে পারেন যারা এসব বিষয় বেশি লক্ষ্য করেন। এ ধরণের শব্দের অনুপস্থিতি আপনার প্রেজেন্টেশনকে আরও শ্রুতিমধুর করে তুলবে।

৭. প্রেজেন্টেশনের সময় নড়াচড়া করুনঃ

কথা বলার সময় আমরা সাধারণত নড়াচড়া করে থাকি যা প্রেজেন্টেশনের সময় ভুলে যাই। মূর্তির মত একই জায়গায় দাঁড়িয়ে না থেকে সামান্য নড়াচড়া আপনার প্রেজেন্টেশনের গ্রহণযোগ্যতা বাড়িয়ে দেয় অনেকগুণ।

৮. হাত রাখুন সামনেঃ

শুধু মাত্র প্রেজেন্টেশনই নয় , আরও বিভিন্ন যায়গায় আমরা দুশ্চিন্তায় পড়ে যায় হাত দুটো কোথায় রাখবো তা নিয়ে। প্রেজেন্টেশনের সময় কোন অবস্থাতেই পকেটে হাত রাখবেন না, পেছনে হাত রাখবেন না, এমনকি আড়াআড়ি করেও নয়। টেলিভিশনের বিভিন্ন উপস্থাপকদের লক্ষ্য করুন তারা হাত কিভাবে রাখে। ঠিক সেভাবেই প্রেজেন্টেশনের সময় আপনার হাত দুটি সামনে কোমরের কাছাকাছি রাখুন। এতে করে বিভিন্ন চার্ট বা টেবলের গুরুত্বপূর্ণ অংশও হাত দিয়ে নির্দেশ করতে সুবিধা হবে।

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।

Leave a Reply