অফিসে দায়িত্ব ও কর্তব্য পালনে যে বিষয়গুলো মনে রাখা গুরুত্বপূর্ণঃ ৩য় পর্ব

নতুন যোগদান। নতুন পরিবেশে চলছে খাপ খাওয়ানো ও সহকর্মীদের সাথে আচরণের সাম্যতা। এবার কাজে যোগদানের মূল যে বিষয় সেটি হল আপনার উপর অর্পিত দায়িত্ব ও কর্তব্যগুলোর সঠিক বাস্তবায়ন করা।

প্রতিষ্ঠান এর নিজস্ব কিছু দায়িত্ব বণ্টন থাকলেও আমরা অনেক সময় ঐটুকুতেই সীমাবদ্ধ থাকতে চাই আবার কেউ কেউ এর বাহিরে কোন দায়িত্ব আসলে সেটা করা নিয়ে মানসিক দ্বন্দ্বে ভুগি। যা আমাদের জন্য চাকুরী ক্ষেত্রে অসন্তোষ তৈরি করে।

যদি চাকুরীটি আপনার মনের মত এবং প্রত্যাশিত হয়ে থাকে তাহলে মনোযোগ দিয়ে দায়িত্বগুলো পালন করতে হবে। অন্যথায় প্রতিষ্ঠান পালটালেও আপনার মন কিন্তু স্থির হবে না। আসুন জেনে নেই কিভাবে আমরা স্বতঃস্ফূর্তভাবে অর্পিত দায়িত্বগুলো পালন করব।

  • প্রতিদিন নির্দিষ্ট দায়িত্বগুলোর মনে মনে লিস্ট করে নিন। এছাড়াও আরও দায়িত্ব পালন এর মানসিক প্রস্তুতি রাখুন।
  • উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা বা কর্মীর নির্দেশিত দায়িত্বগুলো ভাল করে বুঝে নিন। কোথাও কোন সংশয় বা অস্পষ্টতা থাকলে তার সাথে আলোচনায় বসুন। আপনার করণীয় সম্পর্কে তাকে অবহিত করুন। হয়ত তার কোন পরামর্শ বা নির্দেশনা থাকতে পারে তা মনোযোগ দিয়ে শুনুন এবং নিজের কাজে সমন্বয় করুন।
  • নতুন কোন কাজের প্রস্তাবনা থাকলে অনেকেই পিছু হটেন অথবা একে বাড়তি ঝামেলা মনে করে থাকেন। কিন্তু নতুন কাজের দায়িত্ব সেই পায় যে কিনা কাজে পারদর্শী বা কাজটি জানে। সুতরাং নিজের ক্যারিয়ারের ও অভিজ্ঞতার জন্য একই পোস্টে থেকে নতুন কাজের দায়িত্ব সাহসিকতার সাথে গ্রহণ করুন। পরবর্তীতে এটি আপনার প্রমোশনের জন্য সহায়ক ভূমিকা রাখবে। আর যদি পোস্ট বা আর্থিক প্রমোশন নাও হয় হতাশ হবেন না, অভিজ্ঞতার ঝুলিতে জমা করে রাখুন এক সময় নিশ্চয়ই এর সুফল পাবেন।
  • অনেকের ধারণা থাকে কাজ শেষ করে ফেললে পরে আরও কাজের চাপ থাকবে তাই কাজ যত ধীর গতিতে করা যায় ততই ভাল। এক্ষেত্রে ব্যক্তিগত ধারণা না পোষণ করে একটু বড় করে ভাবুন। প্রতিষ্ঠানের সাথে কত বড় জনগোষ্ঠী জড়িত, এবং এর ফলে জাতীয় উন্নয়নে আপনার ভূমিকার চিন্তা করুন। দেখুন আপনার দায়িত্ব পালনের স্পৃহা অনেকখানি বেড়ে যাবে।
  • কাজ সম্পাদনের ক্ষেত্রে সময় মেনে চলার চেষ্টা করুন। যে কাজটি আগে করে ফেলতে হবে সেটি দেরীতে শুরু করবেন না। অফিসে সাধারণত চেইন এ কাজ হয় তাই আপনার সময়ক্ষেপণ আরেকজনের জন্য সমস্যা তৈরি করতে পারে।

নিজ যোগ্যতা ও সৃষ্টিশীলতার পরিচয় দিন, কর্মস্থলে দায়িত্ব ও কর্তব্য পালনে এগিয়ে থাকুন। পরবর্তীতে যারা নিয়োগ প্রাপ্ত হবে তারা আপনাকেই অনুসরণ করবে। একজন দায়িত্বশীল কর্মী হিসেবে আপনার জন্য শুভকামনা।

এই সিরিজের অন্যান্য লেখাগুলো পড়ুনঃ

Leave a Reply