এই শীতে নিজেই তৈরি করুন ৩ টি ভিন্ন স্টাইলের টুপি

winter capশীতের সময়টায় ছেলে মেয়ে সবারই একটি সাধারণ কিন্তু দরকারি পোশাকের নাম হচ্ছে টুপি। ফ্যাশান ও প্রয়োজনীয়তার দিকে লক্ষ্য রেখে একেকজন একেক রকমের টুপি ব্যবহার করে থাকে। বাহারি রং ও ঢঙের এইসব টুপি শীত থেকে আমাদের রক্ষা করা ছাড়াও চেহারায় এনে দেয় বৈচিত্র্য।

শীতের সময় নানা ধরণের টুপি কিনতে পাওয়া যায়। কিন্তু একবার ভেবে দেখুন তো আপনার এই শীতের পরার জন্য টুপিটা যদি আপনি নিজেই ডিজাইন করে বানাতে পারেন তাহলে কেমন হবে? এটা আর বলার অপেক্ষা রাখে না যে নিজের হাতের বানানো টুপি পরলে এর অনুভুতিই হবে অন্য রকম।

তাই আসুন দেখা যাক এই শীতে কিভাবে আপনি নিজেই বানাবেন আপনার শীতের টুপি।

(১) Turban Beanie

আপনার সাদামাটা টুপিটাকে চাইলেই আপনি মুহূর্তের মধ্যে সুন্দর একটি আকৃতিতে বদলে দিতে পারেন। যেটা আপনার শীত কমানোর পাশাপাশি আপনার চেহারায় বৈচিত্র আনবে।

যা লাগবে

  • একটি সাধারণ টুপি
  • টুপিটির দৈর্ঘ্যের ৪ চাগের ৩ ভাগ দৈর্ঘ্যের ইলাস্টিক

যেভাবে করবেন

turbanআপনার সংগৃহীত সাধারণ একটি শীতের টুপির ঠিক মাঝামাঝি ইলাস্টিকের টুকরাটি নিয়ে সোজা করে ধরুন। সুঁই সুতো দিয়ে আপনি নিজে হাতেই সেই ইলাস্টিকের টুকরাটা টুপির সাথে সেলাই করে দিন। অথবা চাইলে সেলাই মেশিনে সেলাই করে নিতে পারেন। হয়ে গেলো আপনার শীতের সুন্দর একটি Turban Beanie ।

(২) Embellished Beanie

আপনি যদি একটু রঙিন ও ঝলঝলে পোশাক পছন্দ করেন তাহলে চাইলে আপনার শীতের টুপিটিও করে নিতে পারেন আরেকটু ঝলমলে ও রঙিন। শুধু আপনাকে জানতে হবে এটি করার সঠিক প্রক্রিয়া। আসুন দেখি কিভাবে আপনার শীতের টুপিটি আরও একটু সাজিয়ে তুলবেন। (এই লেখার প্রচ্ছদের ছবি দেখুন)

যা লাগবে

  • একটি সাধারণ টুপি
  • পুতি চুমকি বা প্লাস্টিকের পাথর
  • টুকরো কাপড়
  • গ্লু বা আঠা

যেভাবে করবেন

beenie-stepsআপনার সাধারণ শীতের টুপির অগ্রভাগ সামনে মেলে ধরুন। এবার আপনার টুপির সাথে মানানসই কাপড়ের টুকরা গোল গোল করে কেটে নিন। পছন্দ অনুযায়ী পুতি, চুমকি বা পাথর নিয়ে গ্লু দিয়ে সেই কাপড়ের টুকরাতে সুন্দর করে সাজিয়ে লাগান। এবার সেই কাপড়ের টুকরাতে গ্লু লাগিয়ে টুপির সাম্নের দিকে সেঁটে দিন। আর দেখুন হলে গেলো আপনার শীতের জন্য আপনার নিজেরই হাতে বানানো বাহারি শীতের টুপি।

(৩) knit cat ear hat

CatHat1সৌখিন মানুষদের জন্য শীতের টুপিও একটি আলাদা আবেদন রাখতে পারে। হ্যাঁ আমরা চাইলেই নিজেরাই ঘরে বসে এই শীতের জন্য একটি সুন্দর বিড়াল কান সদৃশ টুপি বানাতে পারি। এটা এতোটাই সহজ যে যে কেউ একা বসেই বানিয়ে ফেলতে পারেন। এর সব থেকে ভালো যে দিকটি তা হলো আপনি আপনার ব্যবহার করা কোন শীতের গরম কাপড় দিয়েও এই টুপি বানাতে পারেন।

যা লাগবে

আপনার হাতে বোনা খানিকটা গরম কাপড় অথবা কোন শীতের পোশাক থেকে নেওয়া কিছুটা গরম কাপড়।

যেভাবে করবেন

CatHat3আপনার মাথার আকৃতি বুঝে কিছুটা উলের কাপড় বুনে ফেলুন অথবা আপনার ব্যবহার করা কোন শীতের গরম কাপড়ের কিছুটা মেপে কেটে ফেলুন। এবার কাপড়টা টানটান করে নিজে রাখুন। বাম পাশের কাপড়ের কোণাটা ধরে ডান পাশের কাপড়ের সমান করে রাখুন। এবার সেলাই মেশিনে উপরের অংশ ও দুই কোণা এক করা অংশটা সেলাই করে ফেলুন। ব্যাস হয়ে গেলো আপনার স্টাইলিশ বিড়াল কান সদৃশ টুপি।

উপরের পদ্ধতিগুলো অনুসরণ করে আপনি যদি এই শীতের টুপি গুলো কিছুটা নিজের মনের মতো করে সাজিয়ে গুছিয়ে নেন তাহলে সেই টুপিটি পরার আনন্দ অনেকগুণ বেড়ে যাবে। এছাড়া আপনি আপনার বাচ্চার জন্য নিজের আদর আর মমতা মিশিয়েও শীতের টুপিগুলো সুন্দর করে বানিয়ে দিতে পারেন।

আরো তথ্যের জন্য ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।

বেছে নিন আপনার জন্য উপযুক্ত মোজাটি

valoমোজা আমাদের নিত্যদিনের জীবনে অতি জরুরি একটি পণ্য। কিন্তু আমরা অনেকেই জানি না কোন মোজাটি আমাদের জন্য বেশি উপযুক্ত। কিছু মোজা বানানো হয় দেহের ব্যথা প্রশমনে, কিছু আবার পা কে ঠাণ্ডা কিংবা গরম রাখার জন্য। এছাড়া কিছু মোজা তৈরি করা হয় গন্ধ কিংবা ব্যাকটেরিয়া থেকে নিরাপদে থাকার জন্য।

এই পোস্টে আমি উল্লেখ করছি কিছু উপায়,যার মাধ্যমে আমরা খুব সহজেই আমাদের দরকারি মোজাটি বাছাই করে কিনতে পারব।

  • নরম ও আরামদায়ক : প্রথমেই দেখে নিতে হবে যে মোজার ভেতর টা নরম বা আরামদায়ক আছে কিনা । যদি আরামদায়ক না হয়ে থাকে, তাহলে আপনি জুতা বা হাই হিল পড়ে চরম অস্বস্তি বোধ করবেন। সাথে সাথে হাঁটার সময়েও আপনার কষ্ট হবে সীমাহীন ।
  • মোজার সাইজ দেখা : ৯০ % মানুষ যে ভুল টা করে থাকে, সেটা হল সাইজ দেখে মোজা না কেনা। ফলে দেখা যায় কিছু মোজা খুব শর্ট হয়, কিছু আবার খুব বড় হয়ে যায়। ভালো ব্র্যান্ড এর মোজা গুলি কমপক্ষে ৪ টি ভিন্ন সাইজের মোজা বানিয়ে থাকে।
  • মোজার ভেতরের ঘনত্ব পর্যবেক্ষণ করা : যেসব মোজা একটু বেশি ঘন, সেগুলি অন্য গুলির তুলনায় বেশি আরামদায়ক এবং সাথে সাথে বেশি দিন টেকসই হয়ে থাকে।
  • মোজাটি ঘর্ষণ-প্রতিরোধী কিনা : মোজা যদি ঘর্ষণ-প্রতিরোধী না হয়, তাহলে খুব তাড়াতাড়ি আপনার পা থেকে খুলে বের হয়ে যাবে। কাজেই এই দিকটি আপনাকে পরখ করে নিতে হবে।

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।

কেমন জ্যাকেট কিনবেন এবারের শীতে?

Fashionable Winter Jacket For 2014শীতকাল প্রায় চলে এসেছে। এখন থেকেই শুরু হয়েছে শীতের পোশাক কেনার ব্যস্ততা। শীতের পোশাকের মধ্যে পুরুষরা সবচেয়ে বেশি পছন্দ করে কোট এবং ব্লেজারকে। কারণ এগুলো কর্মক্ষেত্রে যেমন পরা যায়, তেমনি মানিয়ে যায় অন্য যে কোন স্থানেও। কোট এবং ব্লেজারের পাশাপাশি জ্যাকেটের (jacket) জনপ্রিয়তাও কিন্তু আমাদের দেশে কম নয়। এটি যেমন ফ্যাশনেবল তেমনি শীত থেকে আমাদের রক্ষা করে দারুণভাবে। জানিয়ে দিচ্ছি কিছু জ্যাকেটের বিবরণ যা এ বছর আপনাকে রক্ষা করবে প্রচণ্ড শীতের হাত থেকে , সেই সাথে করে তুলবে স্মার্টও।

Hellfire Down Jacket

Hellfire Down Jacket

এই ধরণের জ্যাকেট দেখতে একটু মোটা হলেও তীব্র শীতের হাত থেকে রক্ষা পেতে এর জুড়ি মেলা ভার। ৫৫০ ফিল পাওয়ার ডাউন ইনসুলেশন এবং ওমনি-হিট থার্মাল রিফ্লেক্টিভ লাইনিং দেয়া এই জ্যাকেটগুলো দেখতেও বেশ সুন্দর। জিন্সের সাথে সহজেই মানিয়ে যায়। এ ধরণের জ্যাকেটের দাম পড়বে ৬ থেকে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত।
oracle-jacket-marmot

Oracle Jacket

খুব ভোরে অফিসে বা ক্লাসের উদ্দেশ্যে বেড়িয়ে পড়তে হয় এমন কারো প্রথম পছন্দ হতে পারে Oracle Jacket। খুব ঘন কুয়াশায়ও স্বচ্ছন্দে এই জ্যাকেট পরে বেরিয়ে পরতে পারেন কারণ এগুলো সম্পূর্ণ ওয়াটার প্রুফ। স্ট্রেচ ফ্যাব্রিক দিয়ে তৈরি এই জ্যাকেটগুলো আপনার গলাকেও রক্ষা করবে ঠাণ্ডায় জমে যাওয়ার হাত থেকে।
patagoniarainshadow

Rain Shadow Jacket

এ জ্যাকেটগুলো সাধারণত খুব তুষারপাত হয় এমন দেশের জন্য তৈরি। ওয়াটার প্রুফ এই জ্যাকেটগুলো ধীরে ধীরে আমাদের দেশের তরুণদেরও পছন্দের তালিকায় উঠে আসছে। জ্যাকেটগুলো পেয়ে যাবেন ৮ থেকে ১২ হাজার টাকার মধ্যেই।
quilted-nylon-pea-coat-banana-republic

Quilted Nylon Pea Coat

কোট বা ব্লেজারের পরিবর্তে এই জ্যাকেটগুলো পরে যেতে পারেন কর্মক্ষেত্রে। আবার ছুটির দিনে বন্ধুদের সাথে আড্ডা দিতে গেলেও সহজেই মানিয়ে যাবে পরিবেশের সাথে। এই জ্যাকেটের সুবিধা হলো, তীব্র শীতেও আপনাকে উষ্ম রাখবে, আবার দেখতে হালকা-পাতলা যা শুধুমাত্র কোট বা ব্লেজারের পক্ষেও হওয়া সম্ভব। দাম পড়বে ৫০০০-৮০০০ টাকার মধ্যে।

এছাড়া কম দামে জ্যাকেট কিনতে চাইলে চলে যেতে পারেন রাজধানীর গুলিস্তান, মালিবাগ, মগবাজার, ফার্মগেট, বাড্ডা, সদরঘাট, উত্তরা, বনানী, গুলশান, মহাখালী, মিরপুর, কল্যাণপুর, সদরঘাট, কেরানীগঞ্জ, এলিফ্যান্ট রোড, নিউমার্কেটের দোকানগুলোতে।

একটু বেশি দাম দিয়ে জ্যাকেট, কোট বা ব্লেজার কিনতে চাইলে চলে যান ও-টু, আর্টিস্টি, ফ্রিল্যান্ড, ক্যাটস আই, একস্ট্যাসি, স্মার্টেক্স, প্লাস পয়েন্ট, ইনফিনিটিসহ বিভিন্ন ফ্যাশন হাউজগুলোয়।

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।

প্রিয় পুরানো সোয়েটারটিকে করে তুলুন নতুনের মত

remove the dreaded pilling

শীতকাল আসি আসি করছে। সময় হয়েছে গত বছরে যত্নে তুলে রাখা শীতের পোশাকগুলো (winter clothing) বের করার। কিন্তু সবচেয়ে প্রিয় সোয়েটারটা (sweater) বের করে দেখলেন তাতে আঁশ উঠে গেছে। নতুন ভাবটা আর নেই। অথচ প্রিয় জিনিসটা সরিয়ে রাখতেও ইচ্ছা করছে না। কি করবেন এই অবস্থায়?

খুব সহজ একটি পন্থা অবলম্বন করে আপনার পুরানো আঁশ উঠা (dreaded pilling) সোয়েটারকে প্রায় নতুনের মত করে নিতে পারে। এজন্য আপনার প্রয়োজন হবে শুধুমাত্র একটু নতুন শেভিং রেজর।

আঁশ উঠে যাওয়া সোয়েটার ধুয়ে ভালভাবে শুকিয়ে নিন। ভেজা ভাব যেন না থাকে। সমতল টেবিলে সোয়েটারটি মেলে দিন।remove the dreaded pilling 2
এবার ধীরে ধীরে শেভিং রেজরটি দিয়ে আঁশ পরিষ্কার করতে থাকুন।remove the dreaded pilling 3
কাজটি করতে একটু ধৈর্য প্রয়োজন, তবে কাজ শেষ হওয়ার পর ফলাফল দেখলে আপনি চমৎকৃত হবেন।remove the dreaded pilling 4
শুধুমাত্র সোয়েটারই নয়, আঁশ উঠে যাওয়া যে কোন পোশাক এভাবে আপনি নতুনের মত করে নিতে পারেন।

এ ধরণের আরও লেখা পড়ুনঃ

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।

টিনেজ মেয়েদের ব্যক্তিত্বকে আকর্ষণীয়ভাবে উপস্থাপন করার কিছু পরামর্শ

Fashion_IMAGE_04
ছবি কৃতজ্ঞতা-Tuhin Hossain Photography

প্রতিটি মানুষই চায় তাকে যেন আর সবার থেকে আলাদা দেখায়, তাকে আর দশটা মানুষের ভিড়ে সহজেই আলাদা করে চেনা যায়। আর এই প্রবণতা টিনেজ মেয়েদের মধ্যে সবচেয়ে বেশী লক্ষ্য করা যায়। এদের মধ্যে নিজের ব্যক্তিত্বকে আকর্ষণীয় করে উপস্থাপন করার চেষ্টা সব সময় দেখা যায়। তাই টিনেজ মেয়েরা যেভাবে খুব সহজে নিজের ব্যক্তিত্বকে আকর্ষণীয়ভাবে উপস্থাপন করবে সে সম্পর্কে কিছু সহজ পরামর্শ দেওয়া হলো।

১) নিজের প্রতি যত্নবান হোন(take care of yourself)

নিজেকে অন্যের কাছে আকর্ষণীয় করে তুলতে চাইলে প্রথমে নিজের প্রতি যত্নবান হন। নিজের শরীরের যত্ন নিন, দিনের কিছুটা সময় ত্বকের যত্নে অতিবাহিত করুন, প্রতিদিন গোসল করুন, হাত পায়ে সাথে সাথে নখের ও অন্যান্য স্থানের যত্ন নিন।

২) পোশাকে নতুনত্ব বজায় রাখুন(follow the latest trend)

আপনি যখনই অন্যের থেকে নিজেকে আলাদা করে তুলে চান তখন নিজের পোশাক আশাকের ক্ষেত্রেও যে নিজেকে অন্যের থেকে আলাদা করে তুলতে হবে এটা বলার আর অপেক্ষা রাখেনা। হাল ফ্যাশনের কাপড় নিজের দখলে রাখুন, অত্যধিক ঢিলেঢালা পোশাক পরার প্রবণতা ত্যাগ করুন।

৩) চুলের ও সাজগোজের পরিবর্তন আনুন(change your look )

নিজের চিরচেনা রূপটাকে এবার বদলে ফেলুন। আপনার বিরক্তিকর একঘেয়েমি চুলের স্টাইলে পরিবর্তন আনুন, নিজেকে একটু সাজিয়ে গুছিয়ে প্রকাশ করুন, বাইরে বেরুতে যাওয়ার সময় হালকা মেকআপ নিন।

৪) কথা বলার ধরণে পরিবর্তন আনুন (talk in a stylish manner)

আপনার খুব বেশী বাচাল স্বভাব বা খুব বেশী গম্ভীর স্বভাবে পরিবর্তন আনুন। প্রয়োজনে কথা বলুন আর অপ্রয়োজনে অতিরিক্ত কথা বলা থেকে বিরত থাকুন। আপনার বাচাল স্বভাব বা গম্ভীর স্বভাব আপনাকে আকর্ষণীয় করার পথে বাধা সৃষ্টি করতে পারে।

৫) নিজের একটি আধুনিক অবয়ব গড়ে তুলুন (create a modern image of yourself)

নিজেকে আকর্ষণীয় করার অন্যতম পূর্বশর্ত হলো আগে নিজেকে আধুনিক করে তোলা। সময়ের পেছনে না ছুটে সময়ের সাথে চলার চেষ্টা করুন। নিজেকে একজন আধুনিক মানুষে রূপান্তরিত করুন।

৬) মুখে সব সময় একটি স্নিগ্ধ হাসি ধরে রাখুন (sweet smile)

হাসি খুব সহজেই আপনার চেহারায় একটি আলাদা আবেদন তৈরি করে। তাই নিজেকে আকর্ষণীয় করে তুলতে আগে নিজের সাথে মানাইসই একটি হাসি হাসতে চেষ্টা করুন। আপনার স্নিগ্ধ হাসির মায়ায় পড়ে এমনিতেই আপনি অন্যের কাছে আকর্ষণীয় হয়ে উঠবেন।

৭) জানার আগ্রহ বাড়িয়ে তুলুন (be knowledgeable)

যখনই আপনি কারো সাধারণ প্রশ্নের উত্তরগুলো বাকি সবার থেকে আগে আর বেশ গুছিয়ে দিয়ে দেবেন সবার নজর নিঃসন্দেহে আপনার উপর এসে পড়বে। তাই আকর্ষণীয় হতে জানার আগ্রহ বাড়িয়ে তুলুন, নিজের জ্ঞানের পরিধি বাড়ান।

নিজেকে আর দশটা মানুষ থেকে আলাদা আর আকর্ষণীয় করে তুলতে আপনাকে অসাধ্য সাধন করতে হবেনা। শুধু নিজের এলোমেলো চালচলনে একটুখানি গোছানো স্পর্শ দিন দেখবেন আপনি আপনার অজান্তেই কখন একজন আকর্ষণীয় ব্যক্তিতে পরিণত হয়েছেন।

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।

মেকআপ ছাড়াই যেভাবে নিজেকে সুন্দরভাবে উপস্থাপন করবেন

make upবর্তমানে আমাদের সবার একটি বদ্ধমূল ধারণা জন্মে গেছে যে কেবল মাত্র মেকআপ (make-up) আমাদের সুন্দরভাবে উপস্থাপন করতে অবদান রাখে। কিন্তু কোনরূপ মেকআপ ব্যবহার না করেও যে আমরা নিজেদের সুন্দরভাবে উপস্থাপন (present yourself beautifully) করতে পারি এই বোধটা যেন আমরা ভুলেই গিয়েছি। হ্যাঁ মেকআপ ছাড়াও আমরা আমাদের সুন্দরভাবে সাজিয়ে গুছিয়ে রাখতে পারি।

  • সব সময় মুখের ত্বকের যত্ন নিন। দিনে তিন থেকে চারবার পানি দিয়ে মুখ ধুতে ভুলবেন না।
  • চোখে অযথা হাত দিয়ে ঘষাঘষি করবেন না। এতে আপনার চোখের চারপাশে কালো দাগ পড়তে পারে যা হাজার চেষ্টা করেও পরে দূর করতে পারবেন না।
  • চুলগুলো সব সময় পরিষ্কার পরিছন্ন রাখতে চেষ্টা করুন। খেয়াল রাখুন ভেজা চুল কখনো বেঁধে রাখবেন না ।  জোরে চুল আঁচড়াবেন না।
  • হাতের ও পায়ের যত্ন নিন। হাত পায়ের নখগুলো সুন্দর করে পরিষ্কার করে রাখুন। আর যদি হাতের নখ বড় রাখতে চান সেক্ষেত্রে সেগুলোর একটি সুন্দর শেপে রাখতে চেষ্টা করুন।
  • দাঁত ব্রাশ করতে ভুলবেন না। রাতে ঘুমুতে যাওয়ার আগে ও সকালে অবশ্যই দাঁত ব্রাশ করবেন। তবে মনে রাখুন বেশী বেশী দাঁত ব্রাশ করার ফলে দাঁতের এনামেল নষ্ট হয়।
  • দিন রাত মিলিয়ে সীমিত কফি ও চা পান করার চেষ্টা করুন। পরিমিত ঘুমান, অর্থাৎ দিন রাত মিলিয়ে মিনিমাম ৮ ঘণ্টা ঘুমান।
  • বেশী বেশী ফলমূল ও শাক সবজি খান এবং জাংক ফুড বর্জন করে চলুন। বেশী পরিমাণে পানি পান করুন।
  • কখনোই অতিরিক্ত ঢিলেঢালা পোশাক বা অতিরিক্ত টাইট ফিটেড পোশাক পরবেন না।
  • নিজের ভাবমূর্তি বজায় রেখে চলুন। মুখে সব সময় একটি আলতো হাসি ধরে রাখুন।

উপরের নিয়মগুলো মেনে চলুন দেখবেন কোনরূপ মেকআপ বা সাজগোজ ছাড়াই আপনি নিজেকে সুন্দরভাবে উপস্থাপন করতে পারছেন। মেকআপ কেবল আপনার মুখের সাময়িক সৌন্দর্য বাড়িয়ে তুলতে পারে, কিন্তু উপরের টিপসগুলো মেনে চললে আপনি মেকআপ সব সময় সুন্দর আর ফিট থাকতে পারবেন।

পরামর্শ.কম এ স্বাস্থ্য বিভাগে প্রকাশিত লেখাগুলো সংশ্লিষ্ট লেখকের ব্যক্তিগত মতামত ও সাধারণ তথ্যের ভিত্তিতে লিখিত। তাই এসব লেখাকে সরাসরি চিকিৎসা বা স্বাস্থ্য বিষয়ক পরামর্শ হিসেবে গণ্য করা যাবে না। স্বাস্থ্য সংক্রান্ত যেকোন তথ্য কিংবা চিকিৎসার জন্য বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের শরণাপন্ন হোন।

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।