কিভাবে WAMP এর সাহায্যে লোকাল সার্ভারে ওয়ার্ডপ্রেস ইন্সটল করবেন?

How to Install WordPress on Local Server using WAMPএটি ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করার একটি সবচেয়ে বড় সুবিধা যে আপনি চাইলেই WAMP অথবা XMAPP ব্যবহার করে লোকাল সার্ভার/লোকাল হোষ্টে খুব সহজেই ওয়ার্ডপ্রেস ইন্সটল করতে পারবেন। ওয়ার্ডপ্রেস সি.এম.এস. ব্যবহার করে একটি ব্লগ/সাইট তৈরী করে লাইভ সার্ভারে উঠানোর আগে আপনি লোকাল সার্ভারে পরীক্ষা করে দেখতে পারেন সব কিছু ঠিকঠাক আছে কিনা। লোকাল সার্ভার এর সাহায্যে থিম ও প্লাগিন ইন্সটল, কাষ্টমাইজ থেকে শুরু করে ডেভেলপও করতে পারবেন, এর জন্য কোন ইন্টারনেট কানেকশন দরকার হবে না।

চলুন দেখে নেওয়া যাক, কিভাবে WAMP এর সাহায্যে লোকাল সার্ভারে ওয়ার্ডপ্রেস ইন্সটল করবেন।

প্রথম ধাপ । WAMP সার্ভার ডাউনলোড করে আপনার পিসিতে ইন্সটল করুন

প্রথম ধাপে আপনার পিসিকে লোকাল সার্ভারে রূপান্তর করতে হবে এবং এটি করার জন্য আপনি WAMP বা XMAPP লোকাল সার্ভার সফটওয়্যার ব্যবহার করতে পারেন। আমরা এইখানে দেখাবো WAMP সার্ভার দিয়ে কিভাবে আপনার পিসিকে লোকাল সার্ভারে রূপান্তর করে ওয়ার্ডপ্রেস ইন্সটল করবেন। WAMP হচ্ছে একটি ফ্রি লোকাল সার্ভার যা আপনি এইখানে গিয়ে ডাউনলোড করতে পারবেন। WAMP এর দুটি ভার্সন রয়েছে, একটি হচ্ছে ৩২ বিট এর জন্য আরেকটি হচ্ছে ৬৪ বিট এর জন্য। আপনি আপনার পিসির কনফিগারেশন অনুযায়ী WAMP সার্ভার ডাউনলোড করে ইন্সটল করে নিন। তবে ৩২ বিট যেকোন কনফিগারেশনেই কাজ করে।

দ্বিতীয় ধাপ – WAMP সার্ভার Run করে একটি নতুন ডাটাবেস তৈরী করুন

ইন্সটল করা শেষ হলে আপনাকে WAMP সার্ভার রান করতে হবে। যখন WAMP সার্ভার ইন্সটল শেষ হবে তখন আপনার পিসির টাক্সবারে WAMP সার্ভার এর আইকন (W) দেখতে পাবেন। যখন দেখবেন WAMP সার্ভার এর আইকন লাল রঙের তখন বুঝবেন এটি রান করা নেই, মানে অফলাইনে আছে, যখন দেখবেন এটি কমলা রঙের তার মানে এটি আংশিকভাবে চালু আছে আর যখন দেখবেন এটি সবুজ রঙের তখন বুঝবেন এটি পুরোপুরি চালু আছে এবং কাজের জন্য প্রস্তুত। WAMP সার্ভার রান করার জন্য WAMP সার্ভার আইকনে right click করে Start All Service এ click করুন।Install WordPress on Local Server, Step1

যখন সার্ভার রান হবে তখন আপনাকে ওয়ার্ডপ্রেস ইন্সটল করার জন্য একটি নতুন ডাটাবেস তৈরী করতে হবে। ডাটাবেস তৈরী করার জন্য নিচের ধাপগুলো অনুসরণ করুন।

  • WAMP সার্ভার এ right click করে phpMyAdmin এ click করুনInstall WordPress on Local Server, Step2
  • এখন আপনার পিসির ডিফল্ট ব্রাউজারে phpMyAdmin ওপেন হবে
  • এইখান থেকে phpMyAdmin এ click করে Database এ click করুন
  • তারপর create a new database এ click করে database এর নাম দিয়ে সেভ করুন

তৃতীয় ধাপ – লোকাল সার্ভারে ওয়ার্ডপ্রেস ইন্সটল করুন

আপনার পিসির লোকাল সার্ভারে ওয়ার্ডপ্রেস ইন্সটল করার আগে আপনাকে ওয়ার্ডপ্রেস এর সর্বশেষ ভার্সন ডাউনলোড করে নিতে হবে। এইখান থেকে ওয়ার্ডপ্রেস এর সর্বশেষ ভার্সনটি ডাউনলোড করে নিন। এইবার আপনার পিসির যে ড্রাইভে WAMP সার্ভার ইন্সটল করেছেন সেই ড্রাইভে যান যেমন C: Drive তারপর WAMP ফোল্ডারটি খুলে www ফোল্ডারটি খুলুন। তারপর ওয়ার্ডপ্রেস এর যে ফাইলটি আপনি মাত্র ডাউনলোড করলেন সেটা extract করে ওয়ার্ডপ্রেস ফোল্ডারটি কপি করে এইখানে পেষ্ট করুন।

এইবার নিচের ধাপগুলো অনুসরণকরুন

  • পিসির যেকোন একটি ব্রাউজার ওপেন করুন আর এড্রেসবারে http://localhost/ দিয়ে এন্টার দিন
  • Create a Configuration File এ click করে Next এ click করুনInstall WordPress on Local Server, Step3
  • এই ধাপে আপনাকে অনেকগুলো ইনফরমেশন দিতে হবে যেমন Database Name, User name, Password, Database Host and Table Prefix ইত্যাদিInstall WordPress on Local Server, Step4
  • দ্বিতীয় ধাপে যে ডাটাবেস তৈরী করেছেন এইখানে সেই ডাটাবেস এর নামটা দিন, ইউজার নেম হবে “root”, কোন পাসওয়ার্ড দেওয়ার দরকার নেই, Database Host হবে “localhost” এবং Tabel Prefix আপনার ইচ্ছেমতো যে কোন কিছু যেমন ma_, fa_ ইত্যাদি দিতে পারেন এবং সাবমিট এ ক্লিক করুন।
  • এইবার Run the Install option এ ক্লিক করুন
  • তারপর Site Title, User Name, Password and Your E-mail দিয়ে Install WordPress এ ক্লিক করুন।Install WordPress on Local Server

সর্বশেষ

লোকাল সার্ভারে আপনার ওয়ার্ডপ্রেস সাইট/ব্লগ ইন্সটল হয়ে গেলো। এইবার আপনি আপনার ইচ্ছেমত থিম পরিবর্তন, ইন্সটল, প্লাগিন ইন্সটল, কাষ্টোমাইজেশন ইত্যাদি করতে পারবেন।

বিঃদ্রঃ অনেক সময় দেখা যায় যে পিসিতে WAMP সার্ভার রান হয় না, এই সমস্যা মূলত হয় আপনার পিসিতে যদি স্কাইপি ওপেন করা থাকে। স্কাইপি ক্লোজ করে দিয়ে WAMP সার্ভার রান করে তারপর আপনার দরকার হলে স্কাইপি ওপেন করতে পারেন।

আরো ভালভাবে WAMP এর সাহায্যে লোকাল সার্ভারে ওয়ার্ডপ্রেস ইন্সটল এর পদ্ধতিটা বুঝার জন্য নিচের ভিডিও টিউটোরিয়ালটা দেখতে পারেন।


আরো পড়ুন

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।

ওয়ার্ডপ্রেস ব্লগের জন্য কিছু প্রাথমিক এবং গুরুত্বপূর্ণ প্লাগিন্স

wordpress pluginsআমরা যখন ওয়ার্ডপ্রেস ব্লগ সেট-আপ দেই তখন আমাদেরকে ওয়ার্ডপ্রেস ব্লগে কিছু প্রাথমিক প্লাগিন্স ইন্সটল এবং কনফিগার করার দরকার হয়। এই প্লাগিন্সগুলো যে শুধুমাত্র প্রাথমিক তা কিন্তু নয়, এইগুলো ওয়ার্ডপ্রেস ব্লগের জন্য অনেক গুরুত্ব বহন করে।

আমরা যারা ওয়ার্ডপ্রেস নতুন ব্যবহার করা শুরু করেছি বা করবো বলে ভাবছি তারা হয়তো জানেনা না যে  প্রথমেই কোন প্লাগিন্সগুলো ইন্সটল দেওয়া দরকার। তাই আজকের পোষ্টটি তাদের জন্য। আর এই প্রাথমিক প্লাগিন্সগুলোর প্রায় সবগুলোই আপনি ফ্রিতে পাবেন। চলুন দেখে নেওয়া যাক ওয়ার্ডপ্রেস ব্লগের জন্য প্রাথমিক এবং গুরুত্বপূর্ন কিছু প্লাগিন্স।

১. আকিসমেট

ওয়ার্ডপ্রেস ব্লগের জন্য প্রাথমিক এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ন প্লাগিন হচ্ছে আকিসমেট। লক্ষ-লক্ষ ব্লগের মালিক এবং ওয়েবমাষ্টাররা তাদের ব্লগকে স্পাম কমেন্ট থেকে নিরাপদ রাখার জন্য এই প্লাগিনটা ব্যবহার করে থাকেন। এটি একটি ফ্রি প্লাগিন, তাই যে কেউই এই প্লাগিনটা ব্যবহার করতে পারেন। বাই ডিফাল্ট হিসেবে এই প্লাগিনটা ইন্সটল দেওয়া থাকে। আপনাকে শুধু মাত্র এই প্লাগিনটা একটিভ করতে হবে একটি এ.পি.আই. কী এর সাহায্যে, যা আপনি ফ্রিতে পাবেন। বিস্তারিত এইখানে দেখুনAkismet

ডাউনলোড লিঙ্ক

২. ওয়ার্ডপ্রেস এস.ই.ও. বাই ইয়োষ্ট

ওয়ার্ডপ্রেস এস.ই.ও. বাই ইয়োষ্ট হচ্ছে এখনকার সময়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় এস.ই.ও. প্লাগিন যা প্রায় সকল ওয়েবমাষ্টাররাই ব্যবহার করেন। এই প্লাগিনের সাহায্যে খুব সহজেই আপনি আপনার ব্লগের এস.ই.ও. স্কোর বাড়াতে পারবেন যা সার্চ ইঞ্জিন থেকে অনেক ভিজিটর পেতে সাহায্যে করবে। এই প্লাগিন অন-পেজ এস.ই.ও. এবং অফ-পেজ এস.ই.ও. জন্য উপকারী। এর সাহয্যে প্রত্যেকটা পেজ এবং পোষ্ট এর জন্য অপ্টিমাইজ টাইটেল, মেটা ডিস্ক্রিপশন, মেটা কীওয়ার্ড এবং ফোকাসিং কীওয়ার্ড দিতে পারবেন যা অন-পেজ এস.ই.ও. এর জন্য অনেক গুরত্বপূর্ন।WordPress SEO by Yoast

ডাউনলোড লিঙ্ক

৩. জেটপ্যাক বাই ওয়ার্ডপ্রেস.কম

জেটপ্যাক হচ্ছে ওয়ার্ডপ্রেস এর  চমৎকার একটি অফিশিয়াল  প্লাগিন। এই প্লাগিনের রয়েছে অনেক সুন্দর সুন্দর ফিচার যার সাহায্যে খুব সহজেই আপনি আপনার ব্লগকে আরো ভালোভাবে সাজাতে পারবেন এবং ইউজার ফ্রেন্ডলী করতে পারবেন।

জেটপ্যাক এর কিছু ফিচার

  • ব্লগের ভিজিটরের পরিসংখ্যান
  • নোটিফিকেশন বার
  • রিডার সাবস্ক্রাইবিং ফিচার
  • পোষ্ট লাইক অপশন
  • পোষ্ট বাই ইমেইল
  • পোষ্ট শেয়ারিং অপশন
  • স্পেলিং এবং গ্রামার চেকিং
  • কাস্টম সি.এস.এস. সহ আরো অনেক কিছু
  • ডাউনলোড লিঙ্ক

৪. ডব্লিউ-থ্রি টোটাল ক্যাশে

ডব্লিউ-থ্রি টোটাল ক্যাশে একটি জনপ্রিয় ক্যাশে প্লাগিন যা খুব সহজেই আপনার ব্লগের লোডিং স্পীড কমাতে সাহায্যে করবে। এর সাহায্যে আপনি আপনার ব্লগকে আরো বেশী ইউজার ফ্রেন্ডলী করতে পারবেন। শুধুমাত্র এই প্লাগিনটা ইন্সটল দিন এবং টিউটোরিয়াল দেখে কনফিগার করে নিন। মনে রাখবেন, যদি সঠিকভাবে কনফিগার না করেন তাহলে হিতে-বিপরীত হতে পারে।W3 Total Cache

ডাউনলোড লিঙ্ক

৫. কন্টাক ফর্ম ৭

ওয়ার্ডপ্রেস ব্লগের জন্য কন্টাক পেজ অনেক গুরুত্ব বহন করে। অনেকেই তাদের ব্লগের জন্য ফ্রি থিম ব্যবহার করে থাকেন এবং বেশীরভাগ ফ্রি থিমেই কন্টাক পেজ থাকে না। আপনি খুব সহজেই এই ফ্রি প্লাগিনটার সাহায্যে কন্টাক পেজ তৈরী করতে পারবেন। এইটা সহজেই ইন্সটল এবং কনফিগার করা যায়।

ডাউনলোড লিঙ্ক

৬. শেয়ারবার

এস.ই.ও. এর ক্ষেত্রে সোশ্যাল শেয়ারিং অনেক গুরুত্বপূর্ন। সোশ্যাল শেয়ারিং এর মাধ্যমে আপনি খুব সহজেই আপনার ব্লগে অনেক পরিমাণ ভিজিটর পেতে পারেন। এই জন্য শেয়ারবার প্লাগিনটা অনেক কার্যকরী। এটি ইউজার ফ্রেন্ডলী এবং ব্লগ পোষ্টকে অনেক সহজেই শেয়ার করতে সাহায্য করে।

ডাউনলোড লিঙ্ক

৭. লিমিট লগ ইন এটেম্পটস

ওয়ার্ডপ্রেস ব্লগের সিকিউরিটি অনেক গুরুত্বপূর্ন বিষয় যা ওয়ার্ডপ্রেস ইন্সটল দেওয়ার পর-পরই আপনাকে নিশ্চিত করতে হবে। ব্লগের সিকিউরিটির জন্য অনেক বিভিন্ন প্লাগিন ব্যবহার করে থাকেন, অনেকে আবার ম্যানুয়ালি কোডিং করে থাকেন। লিমিট লগ ইন এটেম্পটস একটি চমৎকার প্লাগিন যা দিয়ে আপনার ব্লগকে হ্যাকিং থেকে নিরাপদ রাখতে সাহায্য করবে।

ডাউনলোড লিঙ্ক

৮. ডব্লিউপি-ডিবি ব্যাকআপ

ডব্লিউপি-ডিবি ব্যাকআপ একটি প্রাথমিক এবং গুরুত্বপূর্ণ ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন যা দিয়ে আপনি সহজেই আপনার ব্লগের নিয়মিত ডাটাবেস ব্যাকআপ রাখতে পারবেন। অনেক সময় দেখা যায় যে হ্যাকিং বা সার্ভার এর কারনে সাইট এর ডাটাবেস নষ্ট হতে পারে। তাই সাইট এর নিয়মিত ব্যাকআপ রাখা অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ন।

ডাউনলোড লিঙ্ক

৯. গুগল অ্যানালাইটিকস

ব্লগের ভিজিটর বাড়ানোর জন্য আপনাকে অবশ্যই ব্লগের ভিজিটরের পরিসংখ্যান পর্যবেক্ষণ করতে হবে। এর জন্য গুগল গুগল অ্যানালাইটিকস হচ্ছে সবচেয়ে বেশি কার্যকরী এবং জনপ্রিয়। গুগল অ্যানালাইটিকস প্লাগিনটি আপনার ব্লগে ইন্সটল দিন এবং গুগল অ্যানালাইটিকস একাউন্ট থেকে আপনার সাইট এর কোড এনে কনফিগার করে নিন।

ডাউনলোড লিঙ্ক

আরো পড়ুন

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।

ওয়ার্ডপ্রেস সাইটের নতুন আতঙ্ক ‘SoakSoak’ থেকে মুক্তির উপায়

SoakSoak

SoakSoak

‘Soaksoak’ ম্যালওয়ারটি ইতিমধ্যে সারা বিশ্বব্যাপী ১ লক্ষের উপর ওয়েবসাইটে আক্রমণ করেছে এবং প্রতিদিনই এই সংখ্যা বেড়ে চলছে। মূলত, wordpress ভিত্তিক ওয়েবসাইটগুলোই এই ম্যালওয়ারের আক্রমণের শিকার বেশী হচ্ছে।

এই খবরটি ওয়ার্ডপ্রেস কমিউনিটিতে প্রথম ছড়িয়ে পড়ে রোববার সকালে যখন গুগল প্রায় ১১,০০০+ ডোমেইন ব্লাকলিস্টে ফেলে দেয়। এর কারণ ছিল SoakSoak.ru এর একটি ম্যালওয়ার ক্যাম্পেইন। ম্যালওয়ারটি ‘SoakSoak Malware’ নামেই সবার কাছে পরিচিত হয়ে উঠেছে।

যেহেতু সারাবিশ্বে এখন ৭০ লাখের উপর ওয়েবসাইট ওয়ার্ডপ্রেসে নির্মিত, তাই ম্যালওয়ারটি সমগ্র ওয়ার্ডপ্রেস কমিউনিটি সহ ইন্টারনেট ইউজারদের কাছে এক ভয়াবহ আতঙ্কের নাম হয়ে দাঁড়িয়েছে।

Malware

কোন ওয়েবসাইট যদি এই ম্যালওয়ারের আক্রমণের শিকার হয় তাহলে ওয়েবসাইটটির আচরণ অস্বাভাবিক হয়ে পড়ে যেমনঃ ভিজিটররা ওয়েবসাইটটি ভিজিট করার সময় অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে SoakSoak.ru ওয়েবসাইটে রিডাইরেক্ট করে। এমনকি ভিজিটররা ওয়েবসাইটটি ভিজিট করার সময় তাঁদের পিসিতে  কিছু malicious ফাইল ডাউনলোড হয়ে যায়।

সার্চ ইঞ্জিনগুলো এই ম্যালওয়ারে আক্রান্ত ওয়েবসাইটগুলোকে ব্ল্যাকলিস্টে ফেলে দিচ্ছে যদিও এটা এইসব ওয়েবসাইট  মালিকদের আয়ের উপর বড় ধরনের বাজে প্রভাব ফেলবে!

Sucuri ফার্মের একদল নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ এই ম্যালওয়ারটি নিয়ে গবেষণা করছেন। তাঁদের ভাষ্য মতে,ম্যালওয়ারটি দ্বারা শুধু যে ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইটগুলিতেই আক্রান্ত হচ্ছে ব্যাপারটা তা নয়,কিন্তু,এই পর্যন্ত যতগুলো ওয়েবসাইট আক্রান্ত হয়েছে তাঁর অধিকাংশই ওয়ার্ডপ্রেস হোস্টেড।

Hackers

SoakSoak ম্যালওয়ারটি wp-includes/template-loader.php এর ফাইলটি মোডিফাই করে ফেলে যার ফলে wp-includes/js/swobject.js ওয়েবসাইটের প্রতিটি পেইজ ভিজিটের সময় লোড হয়। এই swobject.js ফাইলটিতে একটা জাভা এনকোডেড ম্যালওয়ার স্ক্রিপ্ট অ্যাড করা আছে।

আপনি যদি এই ভাইরাসের প্রেক্ষিতে আপনার ওয়েবসাইটের অবস্থা জানতে চান,তাহলে Sucuri র Free SiteCheck scanner টি ব্যবহার করে দেখতে পারেন। যদিও এই ম্যালওয়ারে আক্রান্ত হওয়ার লক্ষণগুলি এখনো পুরোপুরি পরিষ্কার নয়, তবুও এখন পর্যন্ত যা দেখা যাচ্ছে তাতে মনে হচ্ছে অধিকাংশ ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইট ব্যবহারকারীরা এই ম্যালওয়ারের শিকার।

যাইহোক,আপনি যদি ক্লাউডপ্রক্সি বা যেকোন CDN সার্ভিস ব্যবহার করেন,তাহলে আপাতত SoakSoak থেকে নিরাপদ থাকার আশা করতে পারেন।

আরো পড়ুন

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।

ওয়ার্ডপ্রেস ব্লগ ইন্সটল করার পরে ১০টি প্রয়োজনীয় সেটিংস

10 Essential Settings After WordPress Installationআমরা অনেকেই ব্লগিং প্লাটফর্ম হিসেবে ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করে থাকি কারন ওয়ার্ডপ্রেস অনেক জনপ্রিয় একটি সি.এম.এস এবং এটি ব্যবহার করা অনেক সহজ। ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করার আগে আপনাকে এর সম্পর্কে ভালোভাবে জানতে হবে, অন্যথায় আপনি বিভিন্ন সমস্যায় পড়তে পারেন। অনেকেই ওয়ার্ডপ্রেস ইন্সটল দেওয়ার পরে কোন ধরনের প্রয়োজনীয় পরিবর্তন ছাড়াই ব্যবহার শুরু করে দেন যা মোটেই ঠিক নয়। ওয়ার্ডপ্রেস এর কিছু প্রাথমিক কিছু সেটিংস (পরিবর্তন) আছে যা ওয়ার্ডপ্রেস ইন্সটল দেওয়ার পরপরই করা উচিৎ। চলুন দেখে নেওয়া যাক এমন ১০ টি প্রয়োজনীয় সেটিংস।

১. সার্চ ইঞ্জিনকে আপনার সাইট ইন্ডেক্স করা থেকে বিরত রাখুন

অনেকেই এইটা দেখে হতবাক হচ্ছেন যে আপনি কেন সার্চ ইঞ্জিনকে আপনার সাইট ইন্ডেক্স করা থেকে বিরত রাখবেন, কিন্তু আপনি যখন ওয়ার্ডপ্রেস প্রথমবার ইন্সটল করবেন তখন এটি একটা গুরুত্বপুর্ন কাজ। সাধারণত আমরা যখন ওয়ার্ডপ্রেস ইন্সটল করি তখন আমাদের ব্লগে কোন কিছুই ঠিক থাকে না এবং কোন কন্টেন্ট থাকে না, তাই আগে সব সেটিং ঠিক করে এবং প্রয়োজনীয় কয়েকটি পেজ যেমন about, contact, copyright policy ইত্যাদি এবং কিছু পোষ্ট দিয়ে তারপর ইন্ডেক্স করুন।

wp-7সার্চ ইঞ্জনকে সাইট ইন্ডেক্স থেকে বিরত রাখার জন্য নিচের ধাপগুলো অনুসরন করুন।

Setting=> Reading=> Search Engine Visibility=> Enable Discourage Search Engines from indexing this site.

২. ডিফল্ট পার্মালিঙ্ক পরিবর্তন করা

এস.ই.ও. এর জন্য একটা ব্লগ/সাইট এর পার্মালিঙ্ক অনেক গুরুত্ব বহন করে। এস.ই.ও. এর জন্য সহায়ক পার্মালিঙ্ক ব্যবহার করে আপনি খুব সহজেই এস.ই.ও. তে ভালো ফলাফল পেতে পারেন। আপনি যখন ওয়ার্ডপ্রেস ইন্সটল দেন তখন আপনার সাইট/ব্লগ এর ডিফল্ট পার্মালিঙ্ক এই রকম থাকে (http://www.yourdomain.com/p=1) যা এস.ই.ও. সহায়ক না। আপনি এটাকে পরিবর্তন করে পোষ্ট নাম অনুসারে যেমন http://www.yourdomain.com/my-first-post/ অথবা আপনার ইচ্ছেমত গঠন দিতে পারেন।

wp-8পার্মালিঙ্ক পরিবর্তন করার জন্য নিচের ধাপটি অনুসরন করুন।

Setting=> Permalink=> Click on Post Name and save.

৩. ব্লগ/সাইট এর স্থায়ী URL ঠিক করুন (www সহ অথবা www ছাড়া)

মূলত www সহ এবং www ছাড়া URL এর মধ্যে তেমন কোন বড় পার্থক্য নাই। কিন্তু আপনি যখন প্রথমবার ওয়ার্ডপ্রেস ব্লগ ইন্সটল দিবেন তখন যে কোন একটি ঠিক করে দিন এবং পরবর্তীতে এটি পরিবর্তন করবেন না। যদি বার বার এটি পরিবর্তন করেন তাহলে আপনার ব্লগ এর ইন্ডেক্সিং এ সমস্যা হতে পারে।

wp-5URL পরিবর্তন করার জন্য নিচের ধাপটি অনুসরন করুন।

Setting=> General Setting=> Choose WordPress address URL and Website Address URL and then save

৪. ডিফল্ট এডমিন একাউন্ট পরিবর্তন করুন

ওয়ার্ডপ্রেস ইন্সটল করার সময় যদি এডমিন ইউজার নাম ঠিক করে না দেন তাহলে ডিফল্ট হিসেবে admin নামে একটি ইউজার নেম তৈরী হবে। ওয়ার্ডপ্রেস সাইট এর নিরাপত্তার জন্য এটি অনেক গুরুত্বপূর্ন। আপনি ডিফাল্ট admin ইউজার নাম পরিবর্তন করতে পারেন অথবা ডিফল্ট admin ইউজার নাম মুছে দিয়ে নতুন এডমিন নাম তৈরি করতে পারেন।

wp-2ডিফাল্ট এডমিন নাম পরিবর্তন বা মুছে দেওয়ার জন্য নিচের ধাপটি অনুসরণ করুন।

Users=> Add New and to Delete default admin ID Go to Users=> All Users.

৫. নতুন ইউজার রেজিস্ট্রেশন নিষ্ক্রিয় করে দিন

যদি আপনার ব্লগ এ কোন পাবলিক ফাংশন না থাকে তাহলে নতুন ইউজার রেজিষ্টেশন নিস্ক্রিয় করে দিন কারণ যদি নতুন ইউজার রেজিস্ট্রেশন চালু রাখেন তাহলে আপনার ব্লগে অনেক স্পামিং হবে। যদি আপনি ব্লগে গেষ্ট পোষ্ট সুবিধা রাখতে চান, সেক্ষেত্রে আপনি নতুন ইউজার তৈরী করে তাদের ইউজার নাম আর পাসওয়ার্ড দিয়ে দিতে পারেন।

wp-6নতুন ইউজার রেজিস্ট্রেশন নিষ্ক্রিয় করার জন্য এই ধাপটি অনুসরণ করুন।

Setting=> General Setting=> Membership, unchecked Anyone can register and save.

৬. টাইম জোন, তারিখ ও সময়ের ফরম্যাট ঠিক করা

ওয়ার্ডপ্রেস ব্লগের সিকিউরিটির জন্য ডিফল্ট টাইম জোন, তারিখ ও সময় ফরম্যাট পরিবর্তন করা গুরুত্বপূর্ণ। তাই ওয়ার্ডপ্রেস ইন্সটল দেওয়ার পরে আপনার লোকাল টাইম জোন ও সময় অনুযায়ী পরিবর্তন করে নিন।

wp-10টাইম জোন, তারিখ ও সময়ের ফরম্যাট পরিবর্তন করার জন্য নিচের ধাপটি অনুসরণ করুন।

Setting=> General Setting=> Time Zone, Date Format and Time Format

৭. ওয়ার্ডপ্রেস পিং লিষ্ট হালনাগাদ করুন

ডিফাল্ট হিসেবে ওয়ার্ডপ্রেস এ মাত্র ২টি পিং সার্ভিস থাকে। ওয়ার্ডপ্রেস ইন্সটল করার পরে পিং লিষ্ট আপডেট করে নিন যাতে করে আপনার ব্লগে নতুন পোষ্ট প্রকাশিত হলে অনেকগুলো পিং সাইট এ সয়ংক্রিয়ভাবে নোটিফিকেশন চলে যায়।

wp-9পিং লিষ্ট পরিবর্তন করার জন্য অনুসরণ করুন Setting=> Writing=> Update Services

নিচে কয়েকটি পিং সার্ভিস এর লিষ্ট দেওয়া হলো যা আপনি ব্যবহার করতে পারেন।

   http://blogsearch.google.com/ping/RPC2
   http://api.feedster.com/ping
   http://rpc.twingly.com
   http://api.moreover.com/ping
   http://api.my.yahoo.com/rss/ping
   http://bblog.com/ping.php
   http://coreblog.org/ping/
   http://ping.amagle.com/
   http://ping.bitacoras.com
   http://ping.blo.gs/
   http://ping.bloggers.jp/rpc/
   http://ping.feedburner.com
   http://ping.myblog.jp
   http://ping.weblogs.se/
   http://rpc.blogrolling.com/pinger/
   http://rpc.pingomatic.com
   http://rpc.technorati.com/rpc/ping
   http://www.blogoole.com/ping/
   http://www.blogoon.net/ping/
   http://www.blogshares.com/rpc.php
   http://www.blogsnow.com/ping
   http://www.newsisfree.com/RPCCloud
   http://www.popdex.com/addsite.php
   http://www.snipsnap.org/RPC2

৮. ডিফাল্ট এভাটার পরিবর্তন করা

যখন ওয়ার্ডপ্রেস ইন্সটল করা হয় তখন ডিফাল্ট হিসেবে Mystery Man এভাটার থাকে, এটি পরিবর্তন করে Gravator Logo অথবা Identicon ব্যবহার করতে পারেন।

wp-3এভাটার পরিবর্তন করার জন্য নিচের ধাপটি অনুসরণ করুন।

Setting=> Discussion=> Default Avatar=> Change it to Gravator Logo and click save

৯. ডিফাল্ট ইমেজ লোকেশন পরিবর্তন করা

ওয়ার্ডপ্রেস ইন্সটল দেওয়ার পরে ডিফাল্ট ইমেজ লোকেশন হিসেবে Organize my uploads into month- and year-based folders দেওয়ার থাকে। এটি পরিবর্তন করার জন্য এই অপশনটি আনচেক করে দিন।

wp-4Setting=> Media=> Uploading Files=> Uncheck Organize my uploads into month- and year-based folders and save

১০. আকিসমেট প্লাগিন সক্রিয় করা

ওয়ার্ডপ্রেস ইন্সটল করার পরে ডিফাল্ট হিসেবে আকিসমেট প্লাগিন ইন্সটল করা থাকে। আপনার ব্লগকে স্পাম কমেন্টস থেকে রক্ষা করার জন্য এই প্লাগিনটা একটিভ করুন। বিস্তারিত এইখানে দেখুন

wp-1Plugins=> Active Akismet=> Add API Key and Active

আরো পড়ুন

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।

ওয়ার্ডপ্রেসে ল্যান্ডিং পেইজ তৈরির কিছু পদ্ধতি

How-to-Create-a-Landing-Page-in-WordPressv2

ল্যান্ডিং পেইজ (landing page)

সাধারণ ভাষায় ল্যান্ডিং পেইজেকে বলা যেতে পারে একটি ওয়েবসাইটের প্রবেশ পথ। এর মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে ভিজিটরদের দৃষ্টি আকর্ষণ করা এবং তাদের কোন কাজ করতে উৎসাহিত করা। সেই কাজগুলো হতে পারে ওয়েবসাইট সাবস্ক্রাইব করা, কোন নির্দিষ্ট বাটন বা লিংকে ক্লিক করা অথবা কোন পণ্য কিনতে উৎসাহিত করা।
ওয়ার্ডপ্রেসেও বিভিন্ন ভাবে ল্যান্ডিং পেইজ তৈরি করা যায়। এমনই কিছু পদ্ধতির বর্ণনা আছে এই লেখাটিতে।

প্লাগ-ইন (plugins)

আজকাল ওয়ার্ডপ্রেসের বেশিরভাগ কাজের জন্যই প্লাগ-ইন পাওয়া যায়। যদি আপনি কোডিং এর পেছনে বেশি শ্রম না দিয়ে স্বল্প সময়ে ল্যান্ডিং পেইজ তৈরি করতে চান তাহলে প্লাগ-ইন এ ক্ষেত্রে আপনার জন্য সহায়ক হবে। ওয়ার্ডপ্রেসের অফিশিয়াল ডিরেকটরিতে কিছু ফ্রি প্লাগ-ইন আছে যা ল্যান্ডিং পেইজ তৈরিতে সাহায্য করতে সক্ষম। তবে সাধারণত দেখা যায় এসব প্লাগ-ইনে আপনি খুব বেশি সুবিধা পাচ্ছেন না, বা অতি প্রয়োজনীয় বেশ কিছু ফিচার সেই প্লাগ-ইনে নেই যা ল্যান্ডিং পেইজ তৈরিতে অপরিহার্য।

তবে  WordPress Landing Pages  নামের এই প্লাগ-ইনটিতে আপনি বেশ কিছু ফিচার পাবেন যা ল্যান্ডিং পেইজ তৈরিতে আপনাকে অনেক সাহায্য করবে। আর এই প্লাগ-ইনটির প্রধান সুবিধা হচ্ছে এটি ফ্রি এবং ব্যবহার করা খুবই সহজ।

ড্র্যাগ এন্ড ড্রপ থিম বিল্ডার (drag and drop theme builders)

ল্যান্ডিং পেইজ দেখতে একটি ওয়েব সাইটের অন্যান্য সকল পেইজ থেকে ভিন্ন হয়। এই ভিন্নতা আনার জন্য যে সকল পরিবর্তন আপনি করতে চান, দেখা যায় বেশিরভাগ ওয়ার্ডপ্রেস থিমই তা করার জন্য আপনাকে অনুমতি দেয় না। আর দিলেও অনেক জায়গায় বিভিন্ন শর্তাবলী দিয়ে রাখে যা মেনে চলতে গেলে ল্যান্ডিং পেইজটি আপনার মনের মত হবে না।

ড্র্যাগ এন্ড ড্রপ বিল্ডার কিছু কিছু উন্নতমানের থিমে সংযুক্ত থাকে যা আপনাকে কোন পেইজের ডিজাইন যেভাবে ইচ্ছা কাস্টমাইজ করার সুবিধা দেয়। এখানে কিছু খুব জনপ্রিয় ড্র্যাগ এন্ড ড্রপ থিম বিল্ডারের তালিকা দিয়ে দিচ্ছি যা আপনার ল্যান্ডিং পেইজ তৈরির কাজকে সহজ করে তুলবে।

১. VelocityPage
মূল্যঃ ৯৭-২৪৭ ডলারvelocitypage

২. Divi
মূল্যঃ ৬৯ ডলারdivi

৩. Strata
মূল্যঃ ৫৫ ডলারstrata

৪. Enfold
মূল্যঃ ৫৫ ডলারenfold

৫. Unyson Framework
মূল্যঃ ফ্রিUnyson

এছাড়াও আরও বেশ কিছু বিখ্যাত ড্র্যাগ এন্ড ড্রপ থিম বিল্ডারের তালিকা পেতে চাইলে এই আর্টিকেলটি দেখুন।

লিড পেইজেস (lead pages)

যদি খুব ভাল মানের একটি ল্যান্ডিং পেইজ চান নিজের ওয়ার্ডপ্রেস সাইটের জন্য তাহলে লিড পেইজেস হতে পারে আপনার অন্যতম পছন্দের দাবীদার। এর অসাধারণ সব ফিচার ইতিমধ্যেই অসংখ্য মানুষের আস্থা দখল করে নিয়েছে। লিড পেইজেস এর টুলসগুলো ব্যবহার খুবই সহজ। যদি সময় অপচয় না করে কোয়ালিটি ল্যান্ডিং পেইজ তৈরি করতে চান তাহলে বিনিয়োগ করুন লিড পেইজেস এ। প্রতি মাসে ৩৭ ডলার থেকে এর প্ল্যান শুরু হয়।

লিড পেইজেস হ্যাকিং (lead pages hacking)

লিড পেইজেস কিছু সময় পর পরই নতুন নতুন HTML টেম্পলেট উন্মোচন করে। যে কেউই লিড পেইজেস এর অফিশিয়াল ওয়েবসাইট থেকে এসব টেম্পলেট ডাউনলোড করে ব্যক্তিগত প্রজেক্টে ব্যবহার করতে পারে। তবে এই টেম্পলেটগুলো HTML ফরম্যাটে আছে, তাই একে ওয়ার্ডপ্রেসে ব্যবহার উপযোগী করতে তুলতে হলে নিচের পদ্ধতি অনুসরণ করতে হবেঃ

১. প্রথমে গুগল করুন এটি লিখে download site:blog.leadpages.net এতে আপনি বেশ কিছু ডাউনলোড করার মত টেম্পলেট পেয়ে যাবেন।

২. ডাউনলোড করার পর index.html ফাইলটি age-landing-template.php দিয়ে রিনেইম করে নিন।

৩. ফাইলটি নিচের মত করে এডিট করুন-

  • সবার উপরে রাইট ক্লিক করে এই লাইনটি লিখুন
  • সব এক্সটারনাল ফাইলের পাথ পরিবর্তন করে আপনার বর্তমান থিমের পাথ যুক্ত করুন। উদাহরণ স্বরূপ, এই ধরণের একটি লিংক পরিবর্তিত হয়ে হয়ে যাবে এমন /css/style.css”>code11
  • আর ক্লোজিং এর পুর্বে tag add:
    <?php wp_footer(); ?>

৪. এবার টেম্পলেটটি আপনার FTP সার্ভারে যেখানে বর্তমান থিমটি আছে সেখানে আপলোড করে দিন।

ম্যানুয়ালি কাস্টম পেইজ টেম্পলেট বানিয়ে নিন (manually built custom page template)

ওয়ার্ডপ্রেসে ল্যান্ডিং পেইজ বানানোর এটি বেশ পুরানো পদ্ধতি। যে থিমই ব্যবহার করেন না কেন, আপনি সব সময়ই এর জন্য কাস্টম পেইজ টেম্পলেট তৈরি করতে পারবেন এবং একে পছন্দমত সাজিয়ে নিতে পারবেন।
কাস্টম পেইজ টেম্পলেট এর মাধ্যমে ল্যান্ডিং পেইজ বানানোর সবচেয়ে সহজ পদ্ধতিটি হচ্ছে এর ডিফল্ট page.php টেম্পলেটি নিয়ে এর CSS/HTML স্ট্রাকচারে বিভিন্ন পরিবর্তন সাধন করা।
উদাহরণস্বরূপ আমরা ওয়ার্ডপ্রেসের ডিফল্ট থিম Twenty Fourteen নিয়ে খুব সহজেই এর ডিফল্ট লেফট-সাইড বার, হেডার, ফুটার সহ যা ইচ্ছা বাদ দিতে পারি। দেখুন কিভাবে এটি করা যায় –

১. প্রথমে ডিফল্ট page.php ফাইলটি নিয়ে কপি করুন এবং এর নাম দিন page-lp-example.php.

২. এর পর ডিফল্ট header.php এবং footer.php ফাইলগুলো নিয়ে এর কপি করুন এবং নাম দিন (header-lp-example.php and footer-lp-example.php)

৩. page-lp-example.php এ ডিফল্ট get_header এবং get_footer পরিবর্তন করুন এভাবে

get_header(‘lp-example’); and get_footer(‘lp-example’);

৪. page-lp-example.php থেকে get_sidebar(); সাইডবারটি রিমুভ করে দিন

৫. এবং সবশেষে এই ফাইলগুলো থেকে অপ্রয়োজনীয় HTML ব্লকগুলো রিমুভ করে দিন এবং টেম্পলেটটি LP Example নামে সেভ করুন।

ইফেক্টটি দেখুন –lp-example2

এখানে ফাইনাল ফাইলের কোডগুলো দেয়া হলোঃ

<DOCTYPE html>
<--[if IE 7]>
> <[endif]-->
<--[if IE 8]>
> <[endif]-->
<--[if (IE 7) & (IE 8)]><-->
> <--<[endif]-->
<?php wp_title( '|', true, 'right' ); ?> <--[if lt IE 9]>

<[endif]-->

page-lp-example.php:
<-- #content -->
<-- #primary -->
<-- #main-content -->
footer-lp-example.php:
<-- #main -->
<-- .site-info -->
<-- #colophon -->
<-- #page -->

ল্যান্ডিং পেইজকে আকর্ষনীয় করে তুলুন

যদিও ল্যান্ডিং পেইজ যতটুকু সম্ভব সাধারণ করা বাঞ্ছনীয়, তারপরেও পাঠককে সঠিক নির্দেশনা দেয়ার জন্য এতে বিভিন্ন বাটন, লিংক, টেস্টিমোনিয়ালস যুক্ত করতে হয়। এই কাজগুলো আপনি ফটোশপ বা CSS/HTML দিয়েও করতে পারেন। কিন্তু আপনার কাজকে সহজ করে তুলতে পারে Shortcodes Ultimate । এই প্লাগ-ইনটির সাহায্যে আপনি বিভিন্ন বাটন, এনিমেশন ইত্যাদি ল্যান্ডিং পেইজে সহজে যুক্ত করতে পারবেন।

ওয়ার্ডপ্রেস নিয়ে আরও লেখা পড়ুন

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।

তথ্যসূত্রঃ codeinwp.com

ওয়ার্ডপ্রেস ব্লগকে নিরাপদ রাখার জন্য কয়েকটি কার্যকরী পরামর্শ

wordpress-securityআমরা জানি ওয়ার্ডপ্রেস একটি জনপ্রিয় কন্টেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম এবং বিশ্বের অনেক ব্লগার/ওয়েরবমাষ্টার তাদের ব্লগ/সাইট এর জন্য এই প্লাটফরমটি ব্যবহার করে থাকেন। যেহেতু অনেক লোক এই প্লাটফরমটি ব্যবহার করেন তাই এইখানে নিরাপত্তা একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আমাদেরসকে আমারদের সাইট এর নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে যা আমরা বিভিন্নভাবে করতে পারি। কেউ প্লাগিন ব্যবহার করে থাকেন, আবার কেউ নিজে নিজে কোড পরিবর্তন করে নিরাপত্তা নিশ্চিত করেন। এছাড়া কিছু গুরুত্বপূর্ণ ডিফাল্ট সেটিং পরিবর্তন করেও সাইট এর নিরাপত্তা নিশ্চিত করা যায়।

চলুন দেখে নেওয়া যাক, কিভাবে আপনার ওয়ার্ডপ্রেস ব্লগ এর নিরাপত্তা নিশ্চিত করবেন।

১. নিয়মিত ওয়ার্ডপ্রেস, থিম ও প্লাগিন আপডেট করুন

নিয়মিত ওয়ার্ডপ্রেস, থিম এবং প্লাগিন আপডেট করা আপনার ব্লগ এর নিরাপত্তার জন্য খুবই গুরুত্ব বহন করে। এটি ব্লগ এর নিরাপত্তার জন্য প্রাথমিক কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ। প্রত্যেকটা নতুন আপডেট ভার্সন এ ওয়ার্ডপ্রেস তাদের কোড গুলো পরিবর্তন করে থাকে নিরাপত্তার জন্য এবং সাইট ব্যবহারকারীদের আরো ভালো অভিজ্ঞতা দেওয়ার জন্য। একইভাবে থিম ও প্লাগিনও সব-সময় আপডেট করা হয় আরো ভালো সার্ভিস দেওয়ার জন্য। তাই আমদের উচিত, নিয়মিত এইগুলা আপডেট করা, কারন বেশিরভাগ সময় হ্যাকাররা ওয়ার্ডপ্রেস, থিম বা প্লাগিন এর পুরোনো ভার্সন কে উপকরন করে ব্লগ হ্যাক বা ব্লগে ভাইরাস প্রবেশ করায়।

২. ইউনিক এবং জটিল পাসওয়ার্ড ব্যবহার করুন

ব্লগকে নিরাপদ রাখার জন্য পাসওয়ার্ড আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আপনি যদি সহজ কোন পাসওয়ার্ড ব্যবহার করেন তাহলে যে কেউই মাত্র কয়েকবার চেষ্টা করেই আপনার ব্লগ/সাইট এ প্রবেশ করতে পারবে। তাই ওয়ার্ডপ্রেস ইন্সটল বা পরবর্তিতে ইউজার তৈরি করার সময় জটিল ও ইউনিক পাসওয়ার্ড দিবে। পাসওয়ার্ড এ অবশ্যই স্পেশাল ক্যারেক্টার যেমন @,#,$,%,^,* এইগুলো এবং সাথে নিউমেরিক ও লেটার এর মিশ্রণ ব্যবহার করবেন।

৩. ডিফল্ট এডমিন ইউজার নেম পরিবর্তন বা মুছে ফেলুন

ওয়ার্ডপ্রেস ইন্সটল করার সময় অনেকে বাই ডিফাল্ট ইউজার নেম এডমিন (admin) দিয়ে থাকেন এবং পরবর্তিতে এই ইউজার নেম ই ব্যবহার করে থাকেন, এটি পরিবর্তন বা মুছে দেন না। এইটা আপনার ব্লগকে নিরাপত্তার দিক দিয়ে খুবই দুর্বল করে দেয়। বেশিরভাগ সময় হ্যাকাররা কিছু সয়ংক্রিয় বোট বা ম্যানুয়ালি কোন সাইটে ঢুকার জন্য ইউজার নেম এডমিন হিসেবে ধরে নেয়। তাই ওয়ার্ডপ্রেস ইন্সটল করার সময় ডিফাল্ট এডমিন নেম পরিবর্তন করে দিন অথবা পরবর্তিতে ডিফাল্ট এডমিন ইউজার নেম মুছে দিয়ে নতুন করে ইউজার তৈরী করুন।

৪. ওয়ার্ডপ্রেস ভার্সন হাইড করে রাখুন, রিডমি এবং লাইসেন্স ফাইল মুছে ফেলুন

ওয়ার্ডপ্রেস এর ভার্সন আপনার ব্লগ এর নিরাপত্তার জন্য হুমকি হতে পারে। তাই ওয়ার্ডপ্রেস ইন্সটল দেওয়ার পরে আপনার ব্লগ থেকে ওয়ার্ডপ্রেস ভার্সন মুছে দিন। এটি আপনি খুব সহজেই করতে পারেন। আপনার ব্লগ এর এডমিন প্যানেল থেকে Appearance => Editor =>functions.phpযান তারপর নিচের কোডটি দিয়ে সেভ এ ক্লিক করুন।

<?php remove_action('wp_head', 'wp_generator');?>

এরপর আপনার ব্লগ এ সি-প্যানেল এ গিয়ে রিডমি এবং লাইসেন্স নামে দুইটি ফাইল মুছে ফেলুন। এইগুলো যদি আপনার ব্লগে থাকে তাহলে এগুলো আপনার ব্লগের নিরাপত্তার জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়াবে।

৫. পাসওয়ার্ড রিকোভারি অপশন মুছে ফেলুন

অনেক সময় হ্যাকাররা আপন্র ব্লগের wp-login.php ফাইলে টার্গেট করে আপনার ব্লগ হ্যাক করার চেষ্টা চালাতে পারে। তাই আপনি পাসওয়ার্ড রিকোভারি অপশন মুছে ফেলুন। প্রথমে আপনার ব্লগ এর wp-login.php ফাইলতা Dreamweaver বা Notepad++ দিয়ে খুলুন। তারপর নিচের কোডটি খুঁজে বের করুন এবং মুছে দিন।

<?php _e( 'Lost your password?' ); ?>

এর পর আবার নিচের কোডগুলো খুঁজে বের করুন এবং মুছে দিন

<form name="lostpasswordform" id="lostpasswordform" action="<?php echo esc_url( site_url('wp-login.php?action=lostpassword', 'login_post' ) ); ?>" method="post">

<label for="user_login"><?php _e('Username or E-mail:') ?>

<input type="text" name="user_login" id="user_login" value="<?php echo esc_attr($user_login); ?>" size="20″ tabindex="10″ /></label>

<?php do_action('lostpassword_form'); ?>
<input type="hidden" name="redirect_to" value="<?php echo
esc_attr($redirect_to ); ?>" />

<input type="submit" name="wp-submit" id="wp-submit" class="button-primary" value="<?phpesc_attr_e('Get New Password'); ?>" tabindex="100″
/></form>

<p id="nav“><a href="<?php echo esc_url( wp_login_url() ); ?>"><?php _e('Log in') ?></a>

এবং সর্বশেষ নিচে লেখাগুলো খুঁজে বের করে মুছে দিন

“Please enter your username or email address. You will receive a link to create a new password via email”

৬. প্লাগিন ডিরেক্টরি এবং WP-config. PHP লুকিয়ে করে রাখুন

প্লাগিন ডিরেক্টরি এবং WP-config. PHP ফাইল ও ওয়ার্ডপ্রেস ব্লগ এর নিরাপত্তার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এইগুলার জন্যও আপনার ব্লগের নিরাপত্তা হুমকিতে পড়তে পারে। তাই আপনার ব্লগ এর প্লাগিন ডিরেক্টরি ও WP-config. PHP লুকিয়ে রাখুন যাতে হ্যাকরা এইগুলাকে টার্গেট করতে পারে।

প্লাগিন ডিরেক্টরি লুকিয়ে রাখার জন্য .htaccessফাইল এ নিচের কোডটি যুক্ত করেন।

# disable plugin directory browsing Options –Indexes

Wp-config.phpফাইল মুছে ফেলার জন্য .htaccessফাইল এ নিচের কোডটি যুক্ত করুন

<Files wp-config.php>
orderallow,deny
deny from all
</Files>

আরো পড়ুন

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।