যে ৬ টি নিয়ম অনুসরণ করলে খুব সহজেই ঘুম থেকে উঠতে পারবেন সেহেরিতে

0,,16318497_303,00রমজানে সেহেরি খেতে ওঠা অনেকের কাছেই খুব কষ্টকর হয়ে দাঁড়ায়। কেননা দীর্ঘদিনের ঘুমের চক্র ভেঙ্গে ফেলা খুব একটা সহজ কাজ নয়। ফলাফল সেহেরিতে উঠতে না পারা, খালি পেটে রোজা রাখা। আপনাকে যেন খালি পেটে রোজা রাখতে না হয়, সেকারণেই আমরা ৬ টি টিপস দিচ্ছি। দেখুন তো কাজে লাগে নাকি।

১) একের অধিক অ্যালার্ম সেট করুনঃ
আপনি সাধারণত একটা অ্যালার্ম সেট করেন এবং তা বাজলে সেটা বন্ধ করে আবার ঘুমিয়ে পড়েন। স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। কিন্তু একটা অ্যালার্ম সেট না করে পরপর ২-৩ টি সেট করুন। অনেক মোবাইলেই একের অধিক অ্যালার্ম সেট করার অপশন থাকে আবার এখন অনেকের কাছেই একের অধিক মোবাইলও থাকে। তবে সব মোবাইলে এক সময়ে অ্যালার্ম সেট করবেন না। পাঁচ মিনিট পরপর করুন। যেমনঃ
১ম অ্যালার্ম-রাত ৩.০০
২য় অ্যালার্ম-রাত ৩.০৫
৩য় অ্যালার্ম-রাত ৩.১০
একটার পর একটা অ্যালার্ম বন্ধ করতে করতে আপনার ঘুম চলে যাওয়ার সম্ভাবনা বেশি।

২) তাড়াতাড়ি ঘুমাতে যানঃ
আপনি যদি রাত ২ টায় ঘুমোতে যান এবং ৩.৩০ এ উঠবেন চিন্তা করেন, তবে সেই চিন্তাটা খানিকটা বিপদজনক চিন্তা হয়ে যায়। একটু তাড়াতাড়ি বিছানায় যাওয়ার অভ্যাস করুন, তাহলে সেহেরি খেতে ঠিক সময়ে উঠতে আপনার সমস্যা হওয়ার কথা নয়।

৩) বন্ধু বান্ধব আত্মীয়স্বজনের সাহায্য নিনঃ

এটি একটি ভাল কৌশল হতে পারে। এজন্যে আপনাকে নিতে হবে একটা নতুন মোবাইল সিম বা এমন একটা সিম যে নাম্বারে আজকাল আপনাকে কেউ কল করে না। এবার আপনার এমন একজন বা দুইজন পরিচিত মানুষকে ঠিক করে নিন,সেহেরিতে উঠতে যাদের কখনো সমস্যা হয় না। এবার তাকে আপনার সেই মোবাইল নাম্বারটি দিন এবং সেহেরিতে উঠলে আপনাকে কল করতে বলুন। প্রশ্ন হতে পারে সবসময় যে নাম্বারটি ব্যবহার করছেন সেটি নয় কেন? সেটি নয় কারণ আপনি যদি আপনার নিয়মিত নাম্বারটি একটিভ রাখেন তবে যে কেউ অন্য কারণে কল দিয়ে আপনার ঘুম ভাঙ্গিয়ে দিবে।

৪) বাড়ির দারোয়ানকে বলুনঃ

আপনার বাড়িতে যদি দারোয়ান থাকে, তবে তাকে সেহেরির সময় কলিংবেল বাজিয়ে আপনাকে ডেকে দিতে বলুন।

৫) তারাবি নামাজের পর চা কফি নয়ঃ
অনেকেই তারাবি নামাজের পর চা কফি খায়। চা কফির মধ্যে থাকা ক্যাফেইন ঘুম তাড়ায়। ফলে রাতের ঘুম আসতে দেরি হয় এবং ঠিক সময়ে সেহেরিতে ওঠা যায় না। তাই রাতে চা কফি পরিত্যাগ করুন।

৬) মনস্থির করুন
মানুষের মনের শক্তিই আসল শক্তি। মনে মনে ঠিক করুন যে আপনি সঠিক সময়ে সেহেরি খেতে উঠবেন। দেখবেন ঠিকই উঠে গিয়েছেন।

আশা করি উপরের যে কোন একটা উপায় বেছে নিয়ে ঠিক সময়েই সেহেরি খেতে উঠতে পারবেন আপনি। শুভকামনা রইলো আপনার জন্যে।

জেনে নিন ইফতার ও সেহেরীর সময়সূচি (রমজান ২০১৪)

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি। পরামর্শ.কম এর অন্যান্য প্রকাশনার আপডেট পেতে যোগ দিন ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাসে অথবা নিবন্ধন করুন ইমেইলে।

Leave a Reply